শাহরুখের উপস্থিতিতে জ্বলে উঠল কলকাতা, হারল রাজস্থান

বুধবার রাতে দুবাই ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে অন্যরকম কলকাতা নাইট রাইডার্সকে (কেকেআর) দেখলেন আইপিএলপ্রেমীরা।

শাহরুখ খানের উপস্থিতিতে জ্বলে উঠলেন কেকেআরের বোলাররা।

আগের ম্যাচগুলোতে রানের বন্যা বইয়ে দেয়া রাজস্থান রয়্যালসকে থামিয়ে দিল মাত্র ১৩৭ রানে।

ফল ৩৭ রানের জয় পেল কিং খানের কেকেআর।

এটি এবারের আসরে কেকেআরের দ্বিতীয় জয় আর রাজস্থানের প্রথম হার।

বলতে গেলে বুধবার দুবাইয়ে ব্যাট-বল-ফিল্ডিং তিন বিভাগেই রাজস্থানকে ধরাশায়ী করল দীনেশ কার্তিকের দল।

টম কারানের ঝড়ো ফিফটি (৩৬ বলে ৫৪*) শুধু রাজস্থানের হারের ব্যবধানই কমিয়েছে।

এ ছাড়া আর উল্লেখযোগ্য কিছু করে দেখাতে পারেনি রাজস্থান।

বুধবার আইপিএলের ১২তম ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন রাজস্থান রয়্যালস অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ।

ব্যাটিংয়ে নেমে ইংলিশ গতি তারকা আর্চারকে ভালোই সামাল দিতে থাকেন নারিন ও শুভমান গিল জুটি।

তবে ১৫ রানের বেশি করতে পারেননি নারিন। উনাতকাদের বলে বোল্ড হন তিনি।

অন্যদিকে শুভমানকে মাত্র ৩ রানের জন্য হাফসেঞ্চুরি বঞ্চিত করেন আর্চার।

দুই ওপেনার চলে যাওয়ার পর চেষ্টা করে যান নিতিশ রানা ও আন্দ্রে রাসেল। শুরুটা ভালো করলেও বেশিক্ষণ ক্রিজে ছিলেন না তারা।

নিতিশ রানাকে ২২ রানে ফিরিয়ে দেন তিওয়াতিয়া। রাজপুতের বলে ২৪ রানেই থেমে যায় আন্দ্রে রাসেলের ইনিংস।

আর্চারের বলে অধিনায়ক মাত্র ১ রানে সাজঘরে ফিরলে এইউন মরগান ছাড়া আর কেউ দাঁড়াতে পারেননি রাজস্থানের বোলারদের কাছে।

মরগানের হার না মানা ২৩ বলে ৩৪ রানের ওপর ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট খুইয়ে ১৭৪ রান করে কলকাতা।

১৭৫ রানের লক্ষ্য নিয়ে নেমে কেকেআরের তিন ভারতীয় বোলারের বলে কুপোকাত হয় রাজস্থান।

দুই পেসার মাভি ও নাগারকোটি এবং স্পিনার বরুণ চক্রবর্তীই কার্যত ভেঙে দেন রাজস্থানের ব্যাটিংয়ের মেরুদণ্ড।

বাটলার (২১) বাদে বাকি সবার রান ছিল টেলিফোন ডিজিটের মতো। স্মিথ (৩), স্যামসন (৮), উথাপ্পা (২) এবং পরাগ (১) রানে আউট হন।

নিজের প্রথম ওভারেই উথাপ্পা ও পরাগের উইকেট তুলে নেন নাগারকোটি।

দুরন্ত ফর্মে থাকা স্যামসন ও বাটলারকে আউট করেন মাভি।

গত ম্যাচের নায়ক রাহুল তেওতিয়াকেও মাত্র ১৪ রানে ফেরান বরুন। শেষ দিকে টম কারান চেষ্টা করলেও তা ১৭৫ রানের লক্ষ্যের কাছে যথেষ্ট ছিল না। ৩৬ বলে ৫৪ রানে অপরাজিত থাকেন কারান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *